মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

ভাষা আন্দোলন নিয়ে ইমপ্রেসের দুই ছবি

প্রতিষ্ঠার পর থেকে সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র নির্মাণে নিরলস পরিশ্রম করছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। কঠিন এক পথচলায় বাংলা চলচ্চিত্রে গুণগত পরিবর্তন এনেছে এই প্রযোজনা সংস্থা। বাংলাদেশে গল্প নির্ভর চলচ্চিত্র নির্মাণে অনন্য এই প্রতিষ্ঠান থেকে প্রযোজিত ছবির সংখ্যা শতাধিক।

এরমধ্যে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে নির্মিত হয়েছে বেশকিছু চলচ্চিত্র, হয়েছে তুমুল প্রশংসিতও। যে চলচ্চিত্রগুলো নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে করেছে সচেতন, দিয়েছে সঠিক ও স্বচ্ছ ইতিহাস জানার সুযোগ।

মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক অনেক সিনেমা হলেও স্বাধীনতার বীজ বপন করা ভাষা আন্দোলন নিয়ে সার্বিকভাবেই দেশে চলচ্চিত্রের সংখ্যা হাতে গোনা। আরো সহজ করে বললে, ১৯৫২ সালে ভাষার জন্য আত্মত্যাগের ৭০ বছর পরেও মাত্র তিনটি ছবির মধ্যেই আটকে আছে মহান ভাষা আন্দোলনের ক্যানভাস। এরমধ্যে কিংবদন্তী জহির রায়হানের কালজয়ী সিনেমা ‘জীবন থেকে নেয়া’ ছাড়া বাকি দুটি ছবি ইমপ্রেস টেলিফিল্ম এর।

এরমধ্যে একটি শহীদুল আলম খোকন পরিচালিত বাঙলা (২০০৬) এবং অন্যটি তৌকীর আহমেদ এর ফাগুন হাওয়ায় (২০১৯)।

প্রখ্যাত সাহিত্যিক আহমদ ছফার ‘ওঙ্কার’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত ‘বাঙলা’ চলচ্চিত্রের মূল চরিত্র একজন বোবা স্ত্রী। কেবল ভাষার মিছিলই সেই নারীকে চঞ্চল ও কৌতূহলী করে তোলে। বাংলায় চিৎকার করতে বলে। ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ স্লোগান একসময় সেই নারীকে স্পষ্টভাবে প্রথমবারের মতো ‘বাঙলা’ শব্দটি উচ্চারণ করায়। তখনই তার মুখ দিয়ে গলগল করে রক্ত বেরিয়ে আসে, সে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। সেই রক্ত শহীদ আসাদের নাকি সেই বোবা বউয়ের, সিনেমা শেষে এই প্রশ্নটি দর্শকদের মনে গেঁথে যায়। এতে মূল চরিত্রে অভিনয় করেন শাবনূর। মাহফুজ আহমেদ ও হুমায়ুন ফরীদি যথাক্রমে তার স্বামী ও বাবার চরিত্রে অভিনয় করেন।

‘ফাগুন হাওয়ায়’ এর একটি দৃশ্য

‘বাঙলা’ নির্মাণের প্রায় এক যুগ পর ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজনা করে ‘ফাগুন হাওয়ায়’। এটি নির্মাণ করেন গুণী পরিচালক তৌকীর আহমেদ। টিটো রহমানের ‘বউ কথা কও’ গল্পের অনুপ্রেরণায় নির্মিত হয়েছে ছবিটি। ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রে সিয়াম-তিশা ছাড়াও অভিনয় করছেন বলিউডের অভিনেতা যশপাল শর্মা, শহীদুল আলম সাচ্চু, আবুল হায়াত, আফরোজা বানু, ফারুক হোসেন, সাজু খাদেম, আজাদ সেতু, হাসান আহমেদ, নুসরাত জেরী প্রমুখ।

বর্ণলিপি বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

এই সপ্তাহের পাঠকপ্রিয়