বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

পূর্ণ তৃপ্তি দিতে না পারলে সম্পর্ক টিকে না : অনন্যা পাণ্ডে

ভাঙ্গা গড়ার মধ্যে দিয়ে ‘সম্পর্ক’ একটা পরিণতিতে গিয়ে দাড়ায়। সময়েরে সাথে সেই সম্পর্কেরও অনেক রুপ আমাদের সামনে এসে ধরা দেয়। কিন্তু বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে কমে আসছে বেশিরভাগ সম্পর্কের স্থায়ীত্ব। এখনকার তরুণ-তরুণীদের সম্পর্ক খুব একটা স্থায়ী হয় না।

সেটা যদি বিয়ের আগে প্রেম-ভালোবাসার হয়, তাহলে তো আরও বেশি ঠুনকো। কিন্তু কেন? সম্পর্কের এই বেহাল দশা?
এই সম্পর্কের বিষয়ে নিজের অভিমত জানালেন ‘গেহরাইয় ‘ সিনেমার আলোচিত অভিনেত্রী অনন্যা পাণ্ডে। অনন্যা পাণ্ডের মতে, বর্তমানে সময়ের প্রজন্ম একাধিক সম্পর্কে জড়াতে ভালোবাসে। এখন একে অপরের সাথে যোগাযোগ এর জন্য অপেক্ষা থাকতে হয়। এখন যোগাযোগ করাটা একদম সহজ। যার ফলে নতুন নতুন মানুষের সঙ্গে আলাপ করার সুযোগও বেশি। কোনো সম্পর্ক যদি পরিপূর্ণ সুখ দিতে না পারে, তাহলে সেই সম্পর্কে তরুণ প্রজন্ম স্থির হয় না। তখন তারা নুতন জায়গায় গিয়ে নিজের সুখ খুজে বেড়ায়।

কিন্তু তরুণদের এমন মানসিকতাকে খারাপ ভাবে নেয়ার সুযোগ নেই বলেও জানায় বলিউডের এই অভিনেত্রী।

অনন্যা পাণ্ডে বলেন, ‘যে সম্পর্ক পূর্ণ সুখ বা তৃপ্তি না দিতে পারে, তাহলে সেই সম্পর্কে মানুষ কেন থাকবে!’

সম্পর্কের স্থায়ীত্বের ক্ষেত্রে ভালোবাসা ও ও ভালোলাগার পার্থক্য বোঝাও জরুরি বলে জানান অনন্যা। ছোটবেলার স্মৃতি হাতটে তিনি জানান, ছোটবেলায় তিনি শাহরুখ খানকে অনেক পছন্দ করতেন এবং স্বপ্ন দেখতেন তেমন কাউকেই প্রেমিক হিসেবে পাবেন। কিন্তু বড় হওয়ার পর তিনি বুঝতে পারেন, কেবল ভালো লাগলেই কেউ স্থায়ী সঙ্গী হতে পারেন না।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে অনন্যা পাণ্ডে অভিনীত সিনেমা ‘গেহরাইয়া। ‘গেহরাইয়া’র মাধ্যমে ওটিটিতে অভিষেক হলো দীপিকার। এতে সম্পর্ক, প্রেম থেকে বিয়ে, পরকীয়া জটিল মনস্তত্ত্বের গল্প বুনেছেন পরিচালক শকুন বাত্রা।

বর্ণলিপি বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

এই সপ্তাহের পাঠকপ্রিয়